শনিবার , নভেম্বর ২৭ ২০২১
Breaking News

বীরগঞ্জে অধিকার বঞ্চিত অসহায় বিধবা নারী ও সন্তানের আকুতি

মো. তোফাজ্জল হোসেন,স্টাফ রিপোর্টারঃ দিনাজপুরের বীরগঞ্জে সন্ত্রাসী কায়দায় ভাড়াটে মাস্তান বাহিনী দ্বারা কোটি কোটি টাকা মূল্যের জমি ও ঘরবাড়ি জবর দখলের চেষ্টা, দেবর ইমন চৌধুরীর বিরুদ্ধে মরহুম মামুন চৌধুরীর বিধবা স্ত্রী আকতারা বানু অভিযোগ করেছেন।

প্রকাশ থাকে যে, মরহুম মোজাম্মেল হক অরফে মুজাম চৌধুরী পৌরশহরের প্রাণকেন্দ্রের একজন বহুল পরিচিত মানুষ ছিলেন। তিনি প্রচুর ধনসম্পদের মালিকও বটে।তার দুই স্ত্রীর ২ ছেলে, মামুন চৌধুরী ও মারুফ হাসান ইমন চৌধুরী। বড় স্ত্রী রেহেনা বেগম সহ মৃত মামুন চৌধুরী দীর্ঘদিন যাবত পরিবার বীরগঞ্জে বসবাস করে আসছেন। অন্যদিকে ছোট স্ত্রী সহ ইমন চৌধুরী তাদের দিনাজপুর জেলা শহরে বসবাস করেন। জেলা সদর ও বীরগঞ্জ পৌর শহরের প্রাণকেন্দ্র বিধায় অনেক মূল্যবান সম্পদ। সম্ভ্রান্ত পরিবার হিসেবে বীরগঞ্জের বহুল পরিচিত মুখ ছিল মুজাম চৌধুরী। অতি সম্প্রতি অল্প বয়সে তার ছেলে মামুন চৌধুরী ও মারা যাওয়ার ফলে তাদের শিশু সন্তান আয়ান সহ চরম অসহায় হয়ে পড়েছে বিধবা নারী। স্ত্রী আকতারা বানু বলেন, সংসারের হাল না ধরতেই স্বামীর মৃত্যু হয়। ৮২ শতাংশ জমির উপর মামুন চৌধুরীর আবাসিক ভবনে শ্বশুর এবং স্বামীর জীবদ্দশায় এখানে শান্তিপূর্ণ বসবাস করছিলেন। শ্বশুর মৃত্যুর পর ২ ভাই ও বোনদের মাঝে জমাজমি বসতবাড়ি বন্টন মোতাবেক ভোগ দখল চলছে। কিন্তু ২৪ অক্টোবর ২০২১ইং তারিখে ইমন চৌধুরী হঠাৎ ভাড়াটে লোকজন এনে ত্রাস সৃষ্টি করে আমার শ্বশুর ও স্বামীর নির্মাণ করা বিল্ডিং ভাংচুর শুরু করে, বাধা দেয়ায় আমাকে ইমন চৌধুরী ও তার লোকজন হুমকি-ধমকি দেয়। আমি জরুরি সেবা ৯৯৯ এ অভিযোগ করি, পুলিশ এলে তারা পালিয়ে যায়। আমি ঘটনাটি বীরগঞ্জ প্রেসক্লাবে গিয়ে সাংবাদিকদের অভিযোগ করি, তারাও এসে সরজমিন ঘটনা প্রত্যক্ষ করেছেন।

আমার স্বামী মৃত্যুর পূর্বে ইমন কখনো এ ধরনের আচরণ করে নাই কিংবা কোন দিন বলতেও শুনি নাই এখানে তার নামে কোন আলাদা জমি আছে।লোক মুখে ও জমি বিক্রি কারণ দালালদের কাছে শুনা যাচ্ছে পৈত্রিক বাসতবাড়ি ও জমি, একক ভাবে ইমন চৌধুরী আনুমানিক ১০ কোটি টাকা মূল্য নির্ধারণ করে ১ কোটি টাকা বায়না নিয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে আরও দেখা যায়, ঐ জমির রেকর্ডীয় মালিক মরহুম আজিম উদ্দিন অরফে আজিম বিহারী চাচা, কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন সাহেবের পুত্র কাজী আবেদ ও সলিমুল্লাহ গং সপরিবারে প্রায় ৩০/৪০ জন নারী-পুরুষ এসে কেন তাদের সম্পত্তির উপরিস্থিত পাকা ঘর ভাংচুর করা হচ্ছে? তারা ইমন চৌধুরীর সাথে ঝগড়া, বিবাদ করতেও দেখা গেছে। চলে উভয় পক্ষে কথা কাটাকাটি, হুমকি ধামকি।

কাজী আবেদ স্পষ্ট জানিয়ে দেয় ভবিষ্যতে এ ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করলে সমীচীম জবাব দিতে বাধ্য হবে। ইমন চৌধুরীর মুখোমুখি হলে তিনি বলেন, এটি নিতান্তই তাদের পারিবারিক ব্যপার। তার বাবা ২০০২ সালে তাকে মৃত্যুর পূর্বে এই জমি তার নামে লিখে দিয়েছেন।

কেন তিনি নিষ্পাপ সন্তান ও বিধবা নারীর উপর জুলুম নির্যাতন করে হকদারের হক থেকে বঞ্চিত করার চেষ্টা করছেন এমন প্রশ্নের জবাবে বলেন, আমি কাউকে বঞ্চিত করছি না। আমার সম্পত্তির ঘর আমি ভেঙ্গেছি তাতে কার কি যায় আসে?এলাকাবাসী মনে করেন যারা প্রকৃত জমি মালিক তারা পথে পথে ফুটপাত ও বস্তিতে বসবাস করছে আর রাঘব বোয়ালরা লুটপাটের মহা উৎসবে মেতেছে, এদের উচিত শিক্ষা দেয়ার এটি উপযুক্ত সময়।

About বীরগঞ্জ টুয়েন্টি ফোর

Check Also

বীরগঞ্জে রাস পূর্ণিমা উপলক্ষ‍্যে মহোৎসব

মোঃ তোফাজ্জল হোসেন, স্টাফ রিপোর্টারঃ দিনাজপুরের বীরগঞ্জে রাস পূর্ণিমা উপলক্ষ‍্যে মহোৎসবের উদ্বোধন করা হয়েছে। শুক্রবার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *